Thursday, April 25, 2024
Homeজীবনীরাজা রামমোহন রায়ের জীবনী | Raja Ram Mohan Roy Biography in Bengali

রাজা রামমোহন রায়ের জীবনী | Raja Ram Mohan Roy Biography in Bengali

Raja Ram Mohan Roy Jivani Bengali

রাজা রামমোহন রায়ের জীবনী PDF | Raja Ram Mohan Roy Biography in Bengali PDF

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবনী
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবনী

বাংলা তথা ভারতের নবজাগরণের অন্যতম পথিকৃৎ ভারতের প্রথম আধুনিক মানুষ রাজা রামমোহন রায়ের জন্মদিবস উপলক্ষে আপনাদের কাছে প্রেরণ করছি রাজা রামমোহন রায়ের জীবনী। এই প্রতিবেদনটি খুবই সহজসাধ্য ভাষায় বর্ণিত এটি আপনাদের হৃদয়গম হবে।

রাজা রামমোহন রায়
নামরামমোহন রায়
জন্ম২২শে মে ১৭৭২
জন্মস্থানরাধানগর, বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু২৭শে সেপ্টেম্বর ১৮৩৩

“বেটার বাড়ি খানাকুল
বেটা সর্বনাশের মূল
ওঁ তৎসৎ বলে বেটা বানিয়েছে স্কুল
ও সে জাতের দফা, করলে রফা, মজালে তিন কুল”

অষ্টাদশ শতাব্দীর বঙ্গভূমিতে নবজাগরণের অগ্রদূত রাজা রামমোহন রায়ের আবির্ভাব তৎকালীন রাজনীতি, জনপ্রশাসন, ধর্ম ও শিক্ষাক্ষেত্রে যে উল্লেখযোগ্য প্রভাব ফেলেছিল তা আমাদের বিস্ময়ে অভিভূত করে। সমকালের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি এক আশ্চর্য ব্যতিক্রম তা বলার বাহুল্য রাখে না। সমাজসংস্কারক রূপে কিংবা বাঙালি মায়ের করুনার বিগলিত প্রাণ রূপে তার প্রাণ ছিল বজ্রতুল‍্য। একই সঙ্গে তিনি ছিলেন অসাধারণ পাণ্ডিত্যের অধিকারী, অজেয় পুরুষ এবং অক্ষয় মনুষ্যত্বের অধিকারী।

জীবনী

১৭২২ সালের ২২শে মে ব্রিটিশ ভারতের বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির রাধানগর গ্রাম যা বর্তমান পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলার খানাকুল ব্লকের অন্তর্গত রাধানগর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত ব্রাম্ভন পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন রাজা রামমোহন রায়। রামকান্ত রায় ও তারিণী দেবী ছিলেন তার পিতা ও মাতা। বলাবাহুল্য বংশগতি সূত্রে পদবী বন্দ্যোপাধ্যায় হলেও প্রপিতামহ কৃষ্ণকান্ত ফারুকশিয়ার আমলে বাংলার সুবেদারের আমিনের কার্যহেতু ‘রায়’ পদবী পেয়েছিলেন।

শিক্ষা জীবন

ছোটবেলা থেকে অসাধারণ মেধাবী ও প্রতিভাবান চরিত্রের অধিকারী রামমোহন রায় পাঠশালা, টোল, মক্তব থেকে বাংলা, সংস্কৃতি, আরবী ও ফরাসী ভাষা অধ্যায়ন করেন। এরপর তিনি তন্ত্রশাস্ত্রবেত্তা সুপন্ডিত নন্দকুমার বিদ্যালঙ্কারের সহযোগিতায় সংস্কৃত ভাষায় পান্ডিত্যলাভ করেন এবং বেদান্ত অনুরাগে দীক্ষিত হতে থাকেন। কাশী-বারাণসীতে সংস্কৃত ভাষায় উচ্চতর শিক্ষা লাভ করার পর পাটনা থেকে আরবী ও ফরাসী ভাষাতেও উচ্চতর শিক্ষালাভ করেন। মাত্র ২২ বছর বয়সে তিনি বাংলা, সংস্কৃত, আরবি, ফারসি, গ্রিক, ল্যাটিন, হিব্রু, ফরাসি ও ইংরাজি ভাষা মিলিয়ে সর্বমোট নয়টি ভাষাতে ব্যুৎপত্তি লাভ করেন।

কর্ম জীবন

কলকাতায় জোড়াসাঁকো অঞ্চলে পৈতৃক সম্পত্তি পাওয়ার পর তিনি ১৭৯৭ খ্রিস্টাব্দে কলকাতায় আসার পরবর্তীতে মহাজনের কাজ করতে থাকেন। পরে ১৮০৩ খ্রিস্টাব্দে পিতার মৃত্যুর পর তিনি ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির চাকুরিতে যোগদান করেন তবে কর্মসূত্রে বিভিন্ন ক্ষেত্রে রোহনাও হন। তবে ১৮১৫ সালে রামমোহন কলকাতার স্থায়ী বাসিন্দা হলে প্রকাশ্যে তার সংস্কার -প্রচেষ্টার শুরু করেন। এসময় একেশ্বরবাদ প্রতিষ্ঠা করার জন্য বেদান্ত সূত্র ও উপনিষদের বাংলা অনুবাদ করেন। ১৮১৫ থেকে ১৮১৯ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে প্রকাশিত হয় বেদান্তগ্রন্থ, বেদান্তসার, কেনোপনিষদ, ঈশপনিষদ, কঠোপনিষদ, মান্ডুক‍্যোপনিষদ ও মুণ্ডকোপনিষদ । এসময়ই তিনি আত্মীয়সভা প্রতিষ্ঠা করেন পরে ইহাকেই ব্রম্ভসমাজে রূপদান করেন।

সমাজ সংস্কারক

রামমোহন রায় একেশ্বরবাদী ছিলেন। তবে তিনি হিন্দুধর্মালম্বীদের মূর্তি পূজনে বিরোধী ছিলেন। তার বিশ্বাস থেকে তিনি ব্রম্ভসমাজ ও ব্রাম্ভধর্ম প্রতিষ্ঠা করেন। তবে তিনি সকল ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানকে কুসংস্কার বলে মনে করতেন এবং প্রকাশ্যে তার প্রতিবাদও করেন। তবে তিনি সকল ধর্মের সমন্বয়ও করতে চেয়েছিলেন। তিনি দেশ তথা জাতির অগ্রগতির জন্য প্রাচ্য ও পাশ্চাত্বের সমন্বয়ের মাধ্যমে ধর্ম ও শিক্ষাক্ষেত্রে নতুন পথের দিশা গড়ে তুলেছিলেন।

সতীদাহ

বেদান্ত উপনিষদগুলো অনুবাদ করার সময়ই সতীদাহকে অশাস্ত্রীয় ও নীতিবিগর্হিত প্রমান করে পুস্তকরচনার মাধ্যমে প্রথম প্রতিবাদের সুর তোলেন। পরে বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাত সামলে লর্ড বেন্টিং এর সহয়তায় ‘সতীদাহ’-র ন্যায় সামাজিক কুপথাকে আইন করে বন্ধ করতে সক্ষম হন।

বিদেশ যাত্রা

তৎকালীন কুসংস্কারের মুখে তীব্র প্রতিবাদ জাগ্রত করে ধর্মভীরুতা দূর করে ১৮৩০ সালের ১৯শে নভেম্বর কলকাতা থেকে বিলেত যাত্রা করেন। পরে ১৮৩২ খ্রিস্টাব্দের শেষের দিকে সেখান থেকে ফ্রান্স যাত্রা করেন। এসময় দিল্লির বাদশাহ দ্বিতীয় আকবর তাকে ‘রাজা’ উপাধিতে ভূষিত করেন।

জীবনাবসান

১৮৩৩ খ্রিস্টাব্দে ইংল্যান্ডের ব্রিস্টলে বসবাস করার সময় মেনিনজাইটিশ রোগে আক্রান্ত হন দীর্ঘ ৮ দিন জ্বর জ্বালায় ভুগে ২৭শে সেপ্টেম্বর পরলোক গমন করেন। তার মৃত্যুর ১০ বছর পর দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর ‘আনসার ডেল’ নামক স্থানে সমাধিস্থল গড়ে তোলেন। স্বাধীনতার পরবর্তীতে সরকারের সাহায্যর্থে তার সমাধিস্থল থেকে ভস্ম এনে রাধানগর গ্রামে সমাধিস্থল গড়ে তোলা হয়েছে। ১৯৯৭ সালে মধ্য বিষ্ট্রলে তার প্রতিমূর্তি স্থাপন করেন।

রাজা রামমোহন রায় জীবনী PDF

File Details :


File Name : Raja Ram Mohan Roy Biography
Language : Bengali
No. of Pages : 02
Size : 01 MB

Also Check :
RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Recent posts

popular posts